পহেলা বৈশাখে নারী নিপীড়ন

২০১৫ সালে, পহেলা বৈশাখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি সংলগ্ন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢোকার পথে, সংগঠিতভাবে নারীদের উপর যৌন নিপিড়নের ঘটনা ঘটেছিল। এতে নানাভাবে নির্যাতন ও হয়রানির শিকার হন-  বাংলা নববর্ষের জন্য আয়োজিত উৎসবে অংশ নিতে আসা নারীরা। শিশুরাও নিপীড়কদের হাত থেকে রেহাই পায়নি। নিপীড়কদের দ্বারা আক্রান্তদের চিৎকার যাতে শোনা না যায়, সেজন্য ‘ভুভুজেলা’ নামক উচ্চধ্বনির বাঁশি বাজানোর কৌশল গ্রহণ করে নিপীড়করা। এই দলবদ্ধ যৌন হয়রানির প্রতিবাদ ও বাঁধা দিতে যাওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র ইউনিয়নের নেতা লিটন নন্দী’র একটি হাত ভেঙে ফেলা হয়।

পহেলা বৈশাখের সন্ধ্যায় সেই ঘটনার ভিডিও এবং ছবি গণমাধ্যমে এলেও তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের চিহ্নিত করে বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার কাজ এখনও হয়নি।

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সহ সারাদেশে, যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে নানা ধরণের কর্মসূচী পালন করেন বিক্ষুব্ধ মানুষেরা।

এ ঘটনার পর থেকে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানের সময় সীমিত করা সহ নানা রকম বিধি-নিষেধ আরোপ করার ঘটনা ঘটেছে।

এ বিষয়ে আরো জানতেঃ

পহেলা বৈশাখে ক্যাম্পাসজুড়ে যৌন হেনস্তা!
বর্ষবরণে যৌন নিপীড়নের বিচার দাবিতে মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ে বাধা

সারাদেশে নিন্দা প্রতিবাদ দোষীদের শাস্তি দাবি

পহেলা বৈশাখের নারী নির্যাতন তদন্তে অগ্রগতি নেই
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তদন্ত প্রতিবেদন ।। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরামর্শ মেনে কাজ করেনি পুলিশ
টিএসসিতে পহেলা বৈশাখের শ্লীলতাহানির ঘটনায় একজনের বিরুদ্ধে চার্জশীট
আমরা বিচার চাই না, আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে অবিচার নির্মূল করতে চাই

অনুসন্ধান

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

আর্কাইভ

বায়ুদূষণের মাত্রা

সর্বাধিক পঠিত

Sorry. No data so far.