ডিহাইড্রেশন থেকে বাঁচার উপায়



ডিহাইড্রেশন বা পানিশূন্যতা গ্রীষ্মকালে কমন সমস্যা। অত্যাধিক গরমে এটি বেশি প্রকট হয়। অধিক গরমে বা প্রচণ্ড তাপে অত্যাধিক ঘাম হয় আর তখনই পানিশূন্যতা দেখা দেয়।

কারণঃ

রোদে ও তাপে ঘোরাঘুরি করলে

প্রচন্ড গরমে

ডায়েরিয়া হলে

শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলে

পর্যাপ্ত পানি না খেলে

লক্ষণঃ

পানির পিপাসা পাওয়া

হালকা মাথা ব্যাথা হওয়া

প্রস্রাবে অক্ষমতা অথবা ৮ ঘন্টা পর্যন্ত প্রস্রাব না হওয়া

হলদে বা হলদে-কালো রঙের প্রস্রাব হওয়া

স্বাভাবিকের চেয়েও কম ইউরিন হওয়া

মুখ এবং ঠোঁট শুষ্ক হওয়া

ত্বক ধীরে ধীরে মুচড়ে যাওয়া

নিম্ন রক্ত চাপ (হাইপোটেনশন) দেখা দেওয়া

হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া

পালস কমে যাওয়া

দুর্বল অনুভব করা

বাচ্চারা ডিহাইড্রেশনে আক্রান্ত হলে মাথায় ভাজ পড়েছে এমন মনে হতে পারে। বিশেষত বাচ্চারা যখন কান্না করে তখন কপালে দাগ দেখা যায়।

সতর্কতাঃ

ডিহাইড্রেশন বেড়ে গেলে গুরুতর জটিলতা দেখা দিতে পারে এবং আপনার রক্ত প্রবাহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে অর্থাৎ শক হতে পারে। ডিহাইড্রেশন থেকে কিডনি রোগ হবার ঝুঁকি থাকে

করণীয়ঃ

প্রচুর পানি পান করা। ( প্রয়োজনের বেশী নয় )

পানিজাতীয় ফলমূল বা ফলের জুস( হাইজেনিক হতে হবে ) খাওয়া। যেমন, তরমুজ, শসা,পেঁপে,ডাবের পানি,আনারস, বেলের জুস ইত্যাদি।

ক্যাফেইন গ্রহণ না করা।

অনুসন্ধান

Generic selectors
Exact matches only
Search in title
Search in content
Search in posts
Search in pages

আর্কাইভ

বায়ুদূষণের মাত্রা

সর্বাধিক পঠিত

Sorry. No data so far.